শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

স্পোর্টস ডেস্ক :

প্রকাশিত: ১৪:৩৯, ২ জুন ২০২৪

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে কানাডাকে হেসেখেলে হারাল যুক্তরাষ্ট্র

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে কানাডাকে হেসেখেলে হারাল যুক্তরাষ্ট্র
সংগৃহীত

কানাডার বিপক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের সহজ জয় আনুষ্ঠানিক কোনো জৌলুস ছাড়াই শুরু হয়েছে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। তবে মাঠের খেলাই যে আসল, সেটাই প্রমাণ করল প্রথমবারের মতো বিশ্বমঞ্চ মাতাতে আসা আইসিসির দুই সহযোগী দেশ কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্র। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৯৪ রান করে কানাডা। জবাবে ১৪ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় স্বাগতিক দল।

রবিবার (২ জুন) ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৬টায় শুরু হয় এ ম্যাচটি।

১৯৫ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই হোচট খায় যুক্তরাষ্ট্র। রানের খাতা খোলার আগেই প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন স্টিভেন টেইলর। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই টেইলরকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন কলিম সানা। কানাডার জোরালো আবেদনে সাড়া দেন ফিল্ড আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ। এরপর রিভিউ নিলেও তাতে লাভ হয়নি স্বাগতিকদের।

এরপর প্রথম ওভারের শেষ বলে চার মেরে রানের খাতা খুলেন আন্দ্রিস গোস। পরের ওভারে আসে ৬ রান। তৃতীয় ওভারে দুটি চার মারেন মোনাক প্যাটেল। সেই ওভারে আসে ১৪ রান।
মোনাঙ্ককে সঙ্গে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন আন্দ্রেস গাউস। তবে মোনাঙ্কও বেশিক্ষণ ক্রিজে থিতু হতে পারেননি। পাওয়ার প্লে’র পরই প্যাভিলিয়নে ফেরেন যুক্তরাষ্ট্রের অধিনায়ক। দলীয় ৪২ রানে হেলিগারের শিকার হয়ে মাত্র ১৬ করেই সাজঘরে ফেরেন তিনি। 

এরপর কানাডার ওপর রীতিমতো তান্ডব শুরু করেন আন্দ্রিস গোস ও অ্যারন জনস। গড়েন ১৩১ রানের জুটি। তবে ইনিংসের ১৬তম ওভারের চতুর্থ বলে ৭ চার ও ৩ ছক্কায় বিশ্বমঞ্চে নিজের প্রথম ফিফটি তুলে সাজঘরে ফেরেন গোস। শেষ দিকে জয়ের জন্য ৩ ওভারে ১৪ রান দরকার ছিল স্বাগতিকদের। তবে সেটি দীর্ঘায়িত হতে দেননি জনস। ইনিংসের ১৮তম ওভারের প্রথম চার বলে দুটি ছক্কা আর এক চারে ১৪ বল বাকি থাকতেই দলের জন্য নিশ্চিত করেন এ ব্যাটার। দলের ৭ উইকেটে জয় পায় তারা।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে দারুন শুরু করেন দুই কানাডিয়ান ওপেনার অ্যারন জনসন ও নবনীত ডালিওয়াল। এ উদ্বোধনী জুটি করে ৪৩ রান। দলীয় ৪৩ রানের মাথায় অ্যারন জনসনের বিদায়ে প্রথম উইকেট হারায় দলটি। ১৬ বলে ২৩ রান করে সাঝঘওে ফেরেন তিনি।

দলীয় ৬৬ রানে পারগাত সিংয়ের বিদায়ে দ্বিতীয় উইকেট হারায় দলটি। ৭ বলে ৫ রান করেন এ ব্যাটার। এরপর নবনীতকে নিয়ে দারুন জুটি গড়েন নিকোলাস কির্তন। দলীয় ১২৮ রানের মাথায় নবনীতের বিদায়ে তৃতীয় উইকেট হারায় দলটি। ৪৪ বলে ৬১ রানে বিদায় নেন তিনি। 

শেষদিকে শ্রেয়াস মোভার অপরাজিত ৩২ এবং দিলপ্রীত বাজওয়ার ৫ বলে ১১ রানের ক্যামিওতে ১৯৪ রানে থামে কানাডার ইনিংস।

আ/ম

জনপ্রিয়